স্বপনে স্মরণে নজরুল

 

প্রভাত’ সকালে কয়েক পা যেই করেছি প্রাতঃভ্রমণ,
দূর হতে দেখি এক আগুন্তুকের অস্পষ্ট আগমন।
কিঞ্চিত যেই সন্নিকটে আসিলেন পথারোহী,
একি দেখছি, এ যে আমাদের সাক্ষাৎ বিদ্রোহী।
উৎসাহ বশে শুধালাম তারে তব আবির্ভাবের হেতু?
মৃদু হেসে কহে, বাবা-মার সব এক সন্তান, তাই বড় আতুপুতু।
খুকুমণি আজ দেখে নারে ভাই ভোরের রবির আলো,
কত ডাকলাম কত হাঁকলাম ভোর হলো দোর খোলো।
কিছুতেই খুকু উঠলো না তাই ফিরে আসি পায়ে পায়ে,
কত পথ হাটি কিছু রোদে রোদে কিছু বনানীর ছায়ে।
আশে বাঁচে প্রাণ এই বুঝি তারে দেখি, ঐ ঝোপ নিরিবিলি;
দেখিতে না পাই ঠকালি সবাই খুকু ও কাঠবিড়ালী।
মনে মনে তাই বিদ্রোহ জাগে হই আমি বিদ্রোহী,
মুখে হাসি নিয়ে জানিনা কেমনে মুঠোতে রণংদেহি।
গর্জন করে ওষ্ঠ ফুলায়ে কন্ঠে লয়েছি ইস্পাত,
ভাঙ্ ভাঙ্ যত সমাজের সব রুগ্ন কারার ঐ লৌহ কপাট।
গড়তে গেলে ভাঙতেই হবে তবেই হবে সৃষ্টি,
অট্টালিকা গড়বি যতই দেখবি অনাবৃষ্টি,
প্রকৃতিকে টেক্কা দিয়ে মরবি রে তুই নিজের বাঁশে, তবুও বাচি এই আশাতে আজ সৃষ্টি সুখের উল্লাসে।
উল্লাসে আজ মাতোয়ারা আজ বাঙালির খুশির ঈদ,
চাঁদ মামারে দেখব সবাই কাটবো মেঘের বুকে সিঁধ।
দুঃখ সবার ঘুচুক আজি মনের বাসনা পূর্ণ হোক, সমস্বরে একযোগে সব বলব সবাই ঈদ মোবারক।
মুছিয়ে দেবো ধর্মের ভেদ, ধর্মের নাম মানবতা
কাজীর গালে রবির ভাত আর রবির মাথায় কাজীর ছাতা।
রাজনীতিতে পা দেব না, আর দেব না কান
মোরা একই বৃন্তে দুটি কুসুম হিন্দু-মুসলমান।
অনেক কথা বললাম তোরে, আজ তবে আমি আসি,
নমস্কার পায়ে নিও কবি, তোমায় বড্ড ভালোবাসি।।

পোষ্টটি কেমন লাগল?

মতামত দিতে আপনাকে অবশ্যই লগিন থাকতে হবে।

গড় মান 5 / 5. মোট মতামত 1

আপনিই প্রথম মতামত দিন।

আপনার ভালো লাগেনি শুনে দুঃখিত!

কিভাবে উন্নতি করা যায়?

কিভাবে আরও উন্নত করা যায়, সে সমন্ধে আপনার মতামত দিন।

RUPAK SARKAR

Author: Rupak

Leave a Reply